সর্বশেষ সংবাদ:
ফেঞ্চুগঞ্জে কিশোরীদের প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা ও সুরক্ষা উপকরণ বিতরণ রোহিঙ্গাদের আশ্রয়: শেখ হাসিনার প্রতি গাম্বিয়ার বিচারমন্ত্রীর কৃতজ্ঞতা রাজনীতিবিদরাও গাড়ি চালকদের মতো বেপরোয়া : কাদের ভাষা সৈনিক, মুক্তিযোদ্ধা মুহিতের ৮৭তম জন্মদিন আজ রবিবার সিলেটে আসছেন আইজিপি ফেঞ্চুগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ’র বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সরকারের ধারাবাহিকতা বাংলাদেশের অগ্রগতি দৃশ্যমান করেছে : প্রধানমন্ত্রী সিলেটে ট্রাক থেকে ২ যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ দ.সুনামগঞ্জে ‘বন্ধন’ রক্তদান সংগঠনের কমিটি গঠন সেই হাসান বাহিনীর সন্ত্রাসী হামলার শিকার সাংবাদিক মুন্না হবিগঞ্জে গাছের সঙ্গে বাসের ধাক্কা আহত ২০, নিহত ৩ জগন্নাথপুরে গাড়ি চাপায় শিশুর মৃত্যু টুঙ্গিপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী ফজরের নামাজের গুরুত্ব এইডস আক্রান্ত তরুণীকে গণধর্ষণ, পুলিশ হেফাজতে আতঙ্কিত আসামিরা রাজধানীর মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে আগুন নিজের জীবনকে বিপন্ন করে স্বামী বাঁচাতে ‘লিভার’ দিলেন স্ত্রী! রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যা করা হয়েছে তা গণহত্যার শামিল: আইসিজে আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা দ.সুনামগঞ্জে হাওর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শণ করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

রাতে গেলেন পুলিশের এসআইয়ের বাড়িতে, ভোরে বাসার দরজার সামনে মিললো লাশ

বিশেষ প্রতিবেদক :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশের আমন্ত্রণে হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর গ্রামে দুর্গোৎসব দেখতে গিয়েছিলেন নিউটন দেব লিটন (৪৫) নামের এক কম্পিউটার ব্যবসায়ী। সোমবার রাতে তার আমন্ত্রণে নবীগঞ্জে গেলে মঙ্গলবার সকালে ওই কম্পিউটার ব্যবসায়ীর লাশ তার ভাড়া করা বাসার দরজার সামন থেকে উদ্ধার করেছেন পরিবারের সদস্যরা। এসময় তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ পাওয়া গেছে। দীর্ঘদিন ধরে লিটন জগন্নাথপুর থানার পাশ্ববর্তী এক মার্কেটে কম্পিউটার ও ফটোকপি দোকান দিয়ে ব্যবসা করে আসছেন। তিনি থানায় দায়েরকৃত মামলা (অভিযোগ) লিখতেনও।

একাধিক সূত্র জানায়, নিউটন দেব লিটন শারদীয় দূর্গোৎসবের মহানবমী অনুষ্টান দেখতে জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশের আমন্ত্রণে হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর গ্রামে যান। একই অনুষ্ঠানে পৃথকভাবে জগন্নাথপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর সোহেল আমিন ও হবিবপুর এলাকার হেলাল আহমদও যান। তারা একই সঙ্গে মোটরসাইকেল যোগে জগন্নাথপুরের ফিরেন। রাত আড়াইটার দিকে লিটনকে জগন্নাথপুর খাদ্য গুদাম সংলগ্ন জনতা রেস্টুরেন্টের সামনে নামিয়ে দিয়ে নিজ নিজ বাসায় ফিরে যান। পরদিন মঙ্গলবার সকালে ঘুম থেকে উঠে লিটনের মরদেহ বাসার দরজার সামনে দেখতে পান তারই স্ত্রী সঞ্চিতা দেব। তিনি স্বামীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ দেখে চিৎকার করতে থাকেন। তার চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাকে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নিউটন দেব লিটনের মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

Advertisement

নিহত নিউটন দেব লিটন হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার বটছর গ্রামের মৃত নিকুঞ্জ দেবের ছেলে। তিনি জগন্নাথপুর পৌর শহরের সি/এ মার্কেটের একটি আবাসিক ভবনে ভাড়া বাসায় বৃদ্ধা মা, স্ত্রী, ১ ছেলে ও ২ মেয়েকে নিয়ে থাকতেন।

এ ঘটনায় লিটনের বৃদ্ধা মা আরতি রানী দেব, স্ত্রী সঞ্চিতা দেব ও অবুঝ ৩ শিশুর বুকফাঁটা করুন আহাজারীতে হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত লোক লিটন দেবের বাসায় ছুটে যান এবং পরিবারের সদস্যদের শান্তনা জানান।

Advertisement

নিহত লিটনের স্ত্রী সঞ্চিতা রানী দেব সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সোমবার সন্ধ্যা রাতে আমার স্বামী দূর্গোৎসব দেখতে নবীগঞ্জ উপজেলায় যান। মঙ্গলবার ভোর বেলা বাসার দরজা খুলেই আমার স্বামীর নিথর দেহ পরে থাকতে দেখি। এসময় শরীরের  বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ দেখে চিৎকার দিলে অন্যান্যরা ছুটে আসেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা দেন। তবে কিভাবে ঘটনাটি ঘটেছে আমার জানা নেই।

জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশ সংবাদমাধ্যমকে জানান, আমার আমন্ত্রনে নিউটন দেব লিটন পূজার অনুষ্টান দেখতে গেলেও ওই দিন মধ্য রাতে জগন্নাথপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলার সোহেল আমিনের মোটরসাইকেল যোগে লিটন তার নিজ বাসায় ফিরে যায়।

জগন্নাথপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলার সোহেল আমিন সংবাদমাধ্যমকে জানান, জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশের আমন্ত্রণে আমি ও আমার এলাকার হেলাল আহমদকে নিয়ে নবীগঞ্জ এলাকায় দারোগা অনুজ কুমার দাশের বাড়িতে দূর্গোৎসব দেখতে যাই। রাতে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে একই আমন্ত্রণে যাওয়া নিউটন দেব লিটন আমার মোটরসাইকেল যোগে আসার অনুরোধ করলে লিটনসহ আমরা ৩ জন মোটরসাইকেল দিয়ে জগন্নাথপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হই। লিটন মোটরসাইকেলে উঠার সময় তার মূখ থেকে মাদকের গন্ধ বের হওয়ায় আমি ধারনা করি লিটন মদপান করেছেন। রাত অনুমান আড়াইটায় পৌর শহরের সি/এ মার্কেট এলাকায় খাদ্য গুদাম সংলগ্ন জনতা রেস্টুরেন্টের সামনে লিটনকে নামিয়ে দিয়ে আমরা দু’জন আমাদের বাড়িতে ফিরে যাই।

থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, নিউটন দেব লিটনের মৃত দেহ ময়না তদন্তের জন্য মঙ্গলবার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রহস্য উদঘাটনে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

Advertisement

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের অপশনে ক্লিক করুন

এ জাতীয় আরও সংবাদ 👇


Facebook Page


Scroll Up