৩ সন্তানের মাকে গণধর্ষণের পর জোর করে বিয়ে, গ্রেফতার ২

সিলেটের কণ্ঠ ডেস্ক :: পাবনায় ৩ সন্তানের মাকে গণধর্ষণের পর অভিযুক্ত এক ধর্ষকের সঙ্গে জোর করে বিয়ে দেয়ার ঘটনায় মূল আসামি শরিফুল ইসলাম ঘন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ নিয়ে মামলার ২ আসামিকে গ্রেফতার করা হলো। এছাড়া যশোরে পুলিশ কর্মকর্তা ও সোর্সের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ মামলায় ৩ আসামিকে রিমান্ড শেষে আদালতে সোপর্দ করেছে পিবিআই।

পুলিশ জানায়, বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে সদর উপজেলার তেবুনিয়ার সিড গোডাউন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার আসামি শরীফুল ইসলাম ঘন্টুকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে গত সোমবার আরেক অভিযুক্ত রাসেলকে গ্রেফতার হয়। তবে এখনও ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে আরো ৩ আসামি।
২৯ আগস্ট রাতে নির্যাতিতাকে অপহরণের পর টানা চারদিন গণধর্ষণ করে রাসেল আহমেদ ও তার চার সহযোগী। এ ঘটনায় সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে মামলা নথিভুক্ত না করে মধ্যস্থতার কথা বলে জোর করে স্বামীকে তালাক দিয়ে রাসেলের সঙ্গে নির্যাতিতাকে বিয়ে দেয়া হয় বলে অভিযোগ করেন স্বজনরা।
এদিকে যশোরে বুধবার সকালে পুলিশ কর্মকর্তা ও সোর্সের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ মামলায় ৩ আসামিকে রিমান্ড শেষে আদালতে সোপর্দ করেছে পিবিআই। পুলিশ জানায় , রিমান্ডে তাদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে, যা যাচাই-বাছাই চলছে।
গত ২৫ আগস্ট মাদক মামলায় স্বামীকে জেলে পাঠানোর ৯ দিন পর স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযাগ ওঠে স্থানীয় গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই খাইরুল আলমের বিরুদ্ধে। পরদিন মঙ্গলবার রাতে প্রধান অভিযুক্ত এসআই খাইরুলকে বাদ দিয়েই শার্শা থানায় মামলা করা হয়। এ মামলার ৩ আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের অপশনে ক্লিক করুন 👎👎👎

এ জাতীয় আরও সংবাদ 👇