গণপিটুনি খেলেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সেক্রেটারি কয়ছর (ভিডিও)

প্রবাস ডেস্ক :: শুরু থেকেই কমিটি নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা ও অচলাবস্থায় ক্ষুব্ধ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কমিটি গঠন নিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা স্বজনপ্রীতি এবং আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে। এই নিয়ে নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ মনোভাব ব্যক্ত করেছেন। সর্বশেষ সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির প্রথম উপদেষ্টা হওয়ার পর বিভিন্ন অভিযোগে ও নেতাকর্মীদের দাবীর প্রেক্ষিতে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নির্দেশে উপদেষ্টা পদ থেকে তার নাম বাতিল করা হয়।

এদিকে বিএনপির ভাবমূর্তি রক্ষার্থে ক্ষুব্ধ তারেক রহমানও। বিগত কয়েক দিন পূর্বে দলের যুক্তরাজ্য শাখার সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদকে ডেকে নিয়ে তিরস্কারের পাশাপাশি পদত্যাগের ইঙ্গিত প্রদান করেন বলে যুক্তরাজ্য রাজনৈতিক সূত্র জানায়। সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির উপদেষ্টা হওয়ার পর নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছিল। কমিটিতে স্থান হয়নি অনেক যোগ্য, সক্রিয় ও নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীর।

কমিটিতে তিনি নিজ এলাকা জগন্নাথপুরের ২২ জনকে পদ দেয়া হয়েছে। আর সুনামগঞ্জ জেলা বিবেচনায় নিলে এই সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৭ জনে। বিগত দিনের আন্দোলন সংগ্রামে যারা কঠোর পরিশ্রম করেছেন তাদেও অনেককে এবারের কমিটিতে স্থান দেয়া হয়নি। ছাত্রদল থেকে উঠে আসা অনেক যোগ্য নেতৃত্বকে এবার অবমূল্যায়ন করে ভালো কোনো দায়িত্বে দেয়া হয়নি। সবাই ভেবেছিলেন এবার হয়তো একটি ভালো কমিটি হবে। তবে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে যে কমিটি এলো তাতে হতাশ হয়েছেন ত্যাগী ও নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীরা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদের হস্তক্ষেপে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারেক রহমানের নির্দেশে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির ১ম উপদেষ্টা কয়ছর এম আহমদের নাম বাতিলের পর অনেক নেতাকর্মী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে ধন্যবাদ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস প্রদান করেন। যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হওয়ার সুবাদে কয়ছর এম আহমদ দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছাকাছি থেকে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপিকে কুক্ষিগত করে প্রভাব বিস্তার করছেন। অপছন্দ ও দলের নিবেদিত নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে কমিটিতে নিজের লোক বসান। সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির ১ম উপদেষ্টা হওয়া সহ নানান অভিযোগ দলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দৃষ্টি গোচর হলে কয়ছর এম আহমদকে উপদেষ্টা পরিষদ সহ কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়। তারেক রহমানের ইমেজ ক্ষুণ্ন করা ও দলকে বিতর্কিত করায় কয়ছর এম আহমদকে গত কয়েকদিন আগে গণপিঠুনি দেওয়া হয়। অভ্যন্তরিন কোন্দলে এ নিয়ে টানা ৪র্থ বার মার খেলেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ। দলের সুবিধা বঞ্চিত কর্মীর হাতে পরপর তিনবার মার খাওয়ার পরও সমস্যা সমাধানে কার্যকর কোন ভুমিকা না থাকাতেই বিদ্রোহীদের হাতে ৪র্থ বারের মতো মার খেয়ে আহত হতে হয়েছে। কয়ছর এম আহমদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের রাজনীতিতে তার অতিমাত্রায় হস্তক্ষেপ অনুসারী ছাড়া কাউকে রাজনীতি করতে না দেওয়া, বিশেষ করে সুনামগঞ্জ জেলা ও জগন্নাথপুরে নগ্ন হস্তক্ষেপ করা, চাঁদাবাজী, পদ পদবী বিক্রি করা, নমিনেশন বানিজ্য করণ, অযোগ্য মানুষকে পদায়ন করা, সর্বোপরি নেতার (তারেক রহমানের) নাম বিক্রি করে তৃণমুলে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের ইমেজ মারাত্মক ভাবে ক্ষুন্ন হয় ।

জগন্নাথপুরেও হরতাল পালন কালে নির্মম ভাবে নিহত হওয়া শহীদ হাফিজ হত্যা মামলায় স্বাক্ষী না দেওয়া, জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপিতে গ্রহনযোগ্য মানুষদের বাদ দিয়ে নিজের ছোট ভাইকে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক করেন। যিনি এখনো ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

এই বিষয়ে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য কলিম উদ্দিন মিলন বলেন, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির প্রথম উপদেষ্টা যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়সর এম আহমদ খসড়া কমিটিতে ছিলেন। পরে এডভোকেট শহিদ প্রথম উপদেষ্টার দায়িত্বপান।

বিষয়টি নিয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নুরুল প্রতিবেদককে ব্যস্ত আছেন বলে জানান।

ভিডিও দেখতে নিচে ক্লিক করুন

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের অপশনে ক্লিক করুন 👎👎👎

এ জাতীয় আরও সংবাদ 👇